একজন সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে

শিক্ষকতা হচ্ছে এক মহান পেশা আর একজন শিক্ষক হচ্ছেন মানুষ গড়ার কারিগর। একজন শিক্ষক সমাজের সকল শ্রেণির মানুষের কাছে অত্যন্ত মর্যাদা ও সম্মানের পাত্র। প্রত্যেক সফল মানুষের পেছনে শিক্ষকের যে অবদান থাকে, তা নতুন করে বলার কিছু নেই। শিক্ষক শুধু সফল নয়, একজন ভালো মানুষ হতে শেখান। মানবিক বিপর্যয় বা বৈশ্বিক, অর্থনৈতিক সংকটে আক্রান্ত হয়েও সামাজিক, অর্থনৈতিক ও বুদ্ধিবৃত্তিক বিনির্মাণে শিক্ষকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন। শিক্ষক হচ্ছেন একটি দেশের সভ্যতার ধারক ও বাহক।

Image Source: worldatlas.com

একজন শিক্ষকের সর্বোচ্চ পদ কে অধ্যাপক বলা হয়। অধিকাংশ দেশে বিশ্ববিদ্যালয়, গবেষণা কেন্দ্র এবং উচ্চশিক্ষার সর্বোচ্চ পদ হলো অধ্যাপক বা প্রফেসর। প্রফেসর শব্দটি সর্বপ্রথম ব্যবহৃত হয় ১৪ শতকের শেষের দিকে। প্রফেসর (অধ্যাপক) শব্দটি লাতিন ভাষা থেকে এসেছে যার অর্থ, যিনি কলা বা বিজ্ঞানে বিশেষজ্ঞ, সর্বোচ্চ পদের শিক্ষক।

আজকের নিবন্ধে আমরা আলোচনা করব, একজন সহযোগী অধ্যাপক
হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে হলে কী ধরণের যোগ্যতা, দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন।

একজন সহযোগী অধ্যাপক পাবলিক বা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক। সহযোগী অধ্যাপকের পদমর্যাদা একজন অধ্যাপকের একধাপ নিচে এবং সহকারী অধ্যাপকের একধাপ উপরে। 

দায়িত্ব ও কর্তব্য

কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ে তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক উভয় শিক্ষা দেওয়া,পরীক্ষা নেয়া, শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন ধরনের প্রজেক্ট বা গবেষণামূলক কাজ দেওয়া, প্রয়োজন অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের এসব কাজে সাহায্য করা, শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার প্রতি অনুপ্রাণিত করা, ছাত্রছাত্রীদের মূল্যবোধ জাগ্রত করতে সাহায্য করা। এছাড়াও একজন সহযোগী অধ্যাপক শিক্ষার্থীদের পড়ানোর পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের গবেষণাপত্র প্রকাশ করে থাকেন।

নিয়োগ পদ্ধতি

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে দুই প্রক্রিয়ায় অধ্যাপক নিয়োগ করা
হয়ে থাকে।

১. বিভিন্ন শর্ত পূরণ সাপেক্ষে নির্দিষ্ট সময় শেষে
পদোন্নতি দেয়া হয়।

২. বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে সরাসরি বিভিন্ন পদে প্রভাষক,
সহকারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক ও অধ্যাপক পদে নতুন করে নিয়োগ প্রদান।

পদোন্নতির মাধ্যমে সহযোগী অধ্যাপক  হতে হলে প্রথমে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করতে হবে। প্রভাষক থেকে সহকারী অধ্যাপক পদে উন্নীত হতে হলে নির্দিষ্ট যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। আবার সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক হতে চাইলে আবারো কিছু নির্দিষ্ট যোগ্যতা ও চাকরির অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। অভিজ্ঞতার সাথে সাথে আরো কিছু নির্দিষ্ট শর্ত পূরণ হয়।

Image Source: quizmoz.com

সে শর্তগুলো হলো, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক  হতে হলে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ১৪ বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তার মধ্যে ৭ বছর সহকারী অধ্যাপক হিসেবে চাকরি করতে হবে। ৭টি মৌলিক গবেষণাপত্র প্রকাশ অথবা ডিগ্রি পর্যায়ের বই প্রকাশ। এর মধ্যে ৫টি প্রকাশনা সহকারী অধ্যাপক পদে থাকাকালীন সময়ে প্রকাশিত হতে হবে। পিএইচডি ডিগ্রিধারীদের মোট ৭ বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তার মধ্যে সহকারী অধ্যাপক পদে ৫ বছর চাকরি করতে হবে। এমফিল ডিগ্রিধারীদের সর্বমোট ১০ বছরের সক্রিয় কার্যকাল। তার মধ্যে ৬ বছর সহকারী অধ্যাপক পদে চাকরি করতে হবে। মৌলিক গবেষণামূলক প্রকাশনা কিংবা বই প্রকাশের ক্ষেত্রে কোনো নমনীয়তা নেই।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ প্রক্রিয়াও প্রায় একইরকম। এক্ষেত্রে প্রার্থীর অবশ্যই পিএইচডি ডিগ্রি থাকতে হবে। তবে প্রতিষ্ঠানভেদে কাজের অভিজ্ঞতা ও গবেষণামূলক প্রকাশনার ক্ষেত্রে শর্তাবলীর ভিন্নতা থাকতে পারে।

একজন আদর্শ সহযোগী অধ্যাপকের যে সব গুণাবলী থাকতে হবে

সহনশীল, জ্ঞানপিপাসু, পরিশ্রমী, উদ্যমী, বন্ধু সুলভ, ধৈর্যশীল, উপস্থাপনের দক্ষতা, শ্রেণিকক্ষে সহযোগী মনোভাব, ভালো শ্রোতা, সময়ানুবর্তি, ন্যায়পরায়ণ, শেখানোর আগ্রহ, সুনির্দিষ্ট বিষয়ে জ্ঞানের গভীরতা ও শিক্ষাক্রম সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা থাকতে হবে। অপরের মতামতকে গুরুত্ব দিতে হবে এবং  অবশ্যই শিক্ষার্থীদের মন মানসিকতা বুঝতে হবে। এছাড়াও শিক্ষকতাকে একটি ত্যাগী ও সম্মানিত পেশা হিসেবে নেওয়ার মন মানসিকতা থাকতে হবে ও সর্বদা মানদণ্ড বজায় রেখে পাঠদান করতে হবে।

কাজের ক্ষেত্র

আমাদের দেশে শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সংখ্যাও। যার কারণে শিক্ষকদের চাহিদাও বাড়ছে। অনেক সময় সহযোগী অধ্যাপকরা একজন শিক্ষকের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রাসাশনিক দায়িত্বও পালন করে থাকেন। আপনার প্রয়োজনীয় যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা থাকলে আবেদন করতে পারেন সহযোগী অধ্যাপকের পদে।

Image Source: shu.edu

সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো মাঝে মধ্যেই বিভিন্ন পত্রিকায়, জব সাইট ও তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইটে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। তাই কোথাও কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হলো নাকি, সে ব্যাপারে নিয়মিত খবরাখবর রাখুন।

আয় রোজগার

সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলে জাতীয় বেতন স্কেল অনুযায়ী বেতন দেয়া হয়। জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫ অনুযায়ী, সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সহযোগী অধ্যাপক ৪র্থ গ্রেডে ৫০,০০০ টাকা বেতন পান। এছাড়াও নির্দিষ্ট বেতন ভাতা, বোনাসের সুবিধাদি পেয়ে থাকেন।

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একজন সহযোগী অধ্যাপকের বেতন ৩০,০০০-৫০,০০০ পর্যন্ত হতে পারে, তবে বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে এর তারতম্য হতে পারে। যে সকল সহযোগী অধ্যাপকগণ অন্যান্য বিভিন্ন দায়িত্ব (যেমন: বিভাগের প্রধান, ডিন, স্নাতক শিক্ষার প্রধান ইত্যাদি) পালন করেন তারা অতিরিক্ত পারিশ্রমিক পেয়ে থাকেন। এছাড়াও সহযোগী অধ্যাপকগণ অন্যান্য কাজ, যেমন: উপদেষ্টা, একাডেমিক প্রকাশনা বা বিভিন্ন ধরনের বই প্রকাশ, বক্তব্য প্রদান, কোচিং ইত্যাদির মাধ্যমেও আয় করে থাকেন।

Featured Image: mindingthecamous.org

The post একজন সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে appeared first on Youth Carnival.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *