ক্যারিয়ার গড়ুন অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রিতে

Source : ciaps

বর্তমানে আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত এবং জনপ্রিয় ৫ টি পেশার মধ্যে অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং অন্যতম। আপনি যদি গাড়ি নিয়ে কাজ করতে ভালোবাসেন এবং গাড়ির যন্ত্রাংশ মেরামত করার মধ্যে আনন্দ পেয়ে থাকেন, তাহলে নির্দ্বিধায় বলা যায়, এই পেশাটি আপনার জন্য। কারণ এই পেশায় শুধু প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা গুরুত্বপূর্ণ নয়, নিজের দক্ষতা ও প্যাশনের উপর আপনার সাফল্য অনেকাংশে নির্ভর করে থাকে।

 নূন্যতম জ্ঞান নিয়েও অনেকে তাদের পেশা হিসাবে বেছে নিয়েছেন অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রিকে। কারণ এই পেশায় যেমন কর্মীদের প্রচুর চাহিদা রয়েছে তেমনি আয়ও বেশ আকর্ষণীয় বটে। ২০১৮ সালের এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, শুধুমাত্র আমেরিকাতেই বর্তমানে ২৫ কোটি ৫০ লাখের উপর গাড়ি ব্যবহার করা হয়। যার ফলে এই পেশায় প্রায় পঞ্চাশ লক্ষ কর্মক্ষেত্র  সৃষ্টি হয়েছে।

যথাযথ বিনিয়োগের অভাব আর ভৌগলিক অবস্থানের কারণে আমাদের দেশে এখনো অটোমোবাইল নির্মাতা গড়ে ওঠেনি।  তবে আপনি দেশে বসেই এই বিষয়ের উপর পড়াশোনা শেষ করে বাইরের বিভিন্ন অটোমোবাইল কোম্পানিতে নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক, অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রির কোন কোন ক্ষেত্রে আপনি  নিজের ক্যারিয়ার গড়ে তুলবে পারবেন।

১. অটো বডি টেকনিশিয়ান

আপনি যদি গাড়ি মেরামত করতে পছন্দ করেন, তাহলে অটোমোবাইলের এই পেশাটি আপনার জন্য। সাধারণত ক্লায়েন্টদের গাড়ির নিরাপত্তা এবং সমস্যার সমাধান করা একজন অটো বডি টেকনিশিয়ানের কাজ হয়ে থাকে। এই কাজগুলো মধ্যে রয়েছে গাড়ির বডি (ফ্রেম) মেরামত করা, সাসপেনশন, হুইল এলাইনমেন্ট মেরামত ইত্যাদি।

Source: autosrpm.com

যদিও আপনার কাছে এই কাজগুলো আকর্ষণীয় নাও মনে হতে পারে, তবে এর ভালো দিক হচ্ছে, এই কাজের জন্য কোন ধরনের ব্যাচেলর ডিগ্রি নেয়ার প্রয়োজন হবেনা। তবে উন্নত দেশে অটো বডি টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ করার জন্য ‘অটোমোবাইল সার্ভিস এক্সিলেন্স’ সার্টিফিকেটের প্রয়োজন হয়। একজন অটো বডি টেকনিশিয়ান বছরে ৪০ থেকে ৪২  হাজার ডলার আয় করে থাকেন, যা বাংলাদেশী অর্থে প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা।

২. অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ার

নতুন গাড়ি নির্মাণের যাবতীয় বিষয় যেমন,ডিজাইন, যাত্রী নিরাপত্তা, ফুয়েলের ব্যবহারসহ ইঞ্জিন তৈরির কাজগুলো একজন অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ার করে থাকেন। উৎপাদক কোম্পানির সকল চাহিদা অনুসারে নতুন গাড়ি নির্মাণই একজন অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারের দায়িত্ব।

Source: autosrpm.com

সাধারণত অটোমোবাইলের উপর কোন স্নাতক ডিগ্রি, বিশেষ করে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন করে আপনি অটোমোবাইল নির্মাতা কোম্পানিতে যোগদান করতে পারবেন। কাজের দক্ষতা ছাড়াও বিশ্লেষণাত্মক ক্ষমতার বৃদ্ধি ঘটানো এই পেশার জন্য অত্যন্ত দরকারি। একজন অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ার বাৎসরিক ৮৫ থেকে ৯০ হাজার ডলার আয় করে থাকেন।

৩. অটো সেলস ম্যানেজার

ক্রেতাদের নিকট পণ্য পৌঁছানোর জন্য ডিলারশিপের কাজটি অটো সেলস ম্যানেজার করে থাকেন। ক্রেতাদের জন্য গাড়ি বাছাই করে দেওয়া ছাড়াও বিক্রয়ের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা এই পেশার দায়িত্ব হয়ে থাকে।

Source: Inside Lane

সাধারণত ম্যানেজমেন্ট অথবা বিজনেসের উপর ব্যাচেলর ডিগ্রি অর্জন করে খুব সহজেই এই পেশায় যুক্ত হওয়া যায়। তবে সাথে কয়েক বছরের বিক্রয় এবং ম্যানেজমেন্টে কয়েক বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। উন্নত কোনো দেশে আপনি এই পেশায় থেকে বছরে ৭৫ থেকে ৭৮ হাজার ডলার আয় করতে পারবেন।

৪. অটোমোটিভ ইন্সট্রাকটর

অটোমোবাইল শপ অথবা ক্লাস রুমের মতো পরিবেশে একজন অটোমোটিভ ইন্সট্রাকটর কাজ করে থাকেন। অটোমোবাইল বিষয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের গাড়ি মেরামত, ডিজাইন, পরিবহন ও যাত্রী নিরাপত্তা বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করাই এই পেশার দায়িত্ব।

যদিও আমাদের দেশে অটোমোবাইলের ইন্সট্রাকটরদের আয় বেশ কম। তবে আপনার যদি গ্রাজুয়েশনের পাশাপাশি অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রিতে বেশ কয়েক বছর কাজ করার অভিজ্ঞতা থেকে থাকে, তাহলে বাইরের যেকোনো দেশে গিয়ে এই পেশা থেকে বছরে ৫০ হাজার ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে  গ্রাজুয়েশনের পাশাপাশি শিক্ষকতা লাইসেন্স নেয়ারও প্রয়োজন হবে।

৫. গাড়ি ডিটেইলার

যদি কোন নির্মাতা কোম্পানিতে কাজ করতে ইচ্ছুক না হয়ে থাকেন অথবা গ্রাজুয়েশনের অভাবে তেমন সুযোগ না হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে বেছে নিতে পারেন এই পেশাটিকে। গাড়ি ডিটেইলারকে মূলত গাড়ি ক্লিনিং করতে হয়। গাড়ির বডি, হুইল, জানালার গ্লাস এসব পরিষ্কার করার পাশাপাশি পুরনো গাড়িকে নতুনের মতো রঙ করে দেয়া এই কাজের অন্তর্ভুক্ত। এজন্য কোন ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার প্রয়োজন না হলেও বিভিন্ন অটোমোবাইল ক্লিনিং পণ্য সম্পর্ক আপনার ভালো জ্ঞান থাকতে হবে।

কার ডিটেইলার পেশায় নিযুক্ত হয়ে আপনি বছরে কমপক্ষে চল্লিশ হাজার ডলার আয় করতে পারবেন। তবে কাজের পরিমাণ হিসেবে আয় তিন থেকে চারগুণ বৃদ্ধি হওয়াও অসম্ভব নয়।

৬. অটোমোবাইল রেন্টাল এজেন্ট

নামেই বোঝা যাচ্ছে, গাড়ি ভাড়া দেয়াই এই পেশার কাজ। বাংলাদেশে ছাড়াও উন্নত বিশ্বের সকল শহরেই গাড়ি ভাড়া দেয়ার অসংখ্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ফলে এই পেশার জন্য প্রয়োজনীয় কর্মীর চাহিদা সকল স্থানেই রয়েছে।

Source: car rental

ভোক্তাদের গাড়ি বাছাই করতে সহায়তা করা এবং তাদের সাথে চুক্তির কাগজপত্র প্রস্তুত করা একজন অটোমোবাইল রেন্টাল এজেন্টের কাজ হয়ে থাকে। ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং মামলাবিহীন ড্রাইভিং রেকর্ড থাকলে আপনি এই পেশায় যুক্ত হতে পারবেন। উন্নত দেশে এই পেশায় থেকে আপনি বাৎসরিক ২৩ থেকে ২৮ হাজার ডলার আয় করতে পারবেন।

৭. ইঞ্জিন রিকন্ডিশনার

আপনি যদি গাড়ির ইঞ্জিনের ম্যানুয়ালের বিষয়গুলো ভালোবেসে থাকেন, তাহলে এই পেশা আপনার জন্য। মেকানিক্যালের উপর গ্রাজুয়েশন করে অথবা প্রফেশনাল লাইসেন্স নিয়ে আপনি অটোমোবাইল মেরামতকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মী হিসেবে  যোগদান করতে পারবেন।

Source : ciaps

এ পেশায় নিয়োজিত হলে সাধারণত ইঞ্জিনের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান যেমন গিয়ার, ক্রাংশ্যাফট, ক্যামশ্যাফটের মেরামতসহ প্রেশার টেস্টের মতো কাজ আপনাকে করতে হবে। একজন ইঞ্জিন রিকন্ডিশনারের বাৎসরিক আয় ৬০ থেকে ৮০ হাজার ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *