অটোমোবাইল প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তাদের যেসব বিষয় বিবেচনা না করলেই নয়

 অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে আপনার যদি আগ্রহ থাকে, তাহলে হয়তো নিজের একটি অটোমোবাইল  প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার ভেবে থাকবেন। যদিও অধিক পরিমাণ বিনিয়োগের প্রয়োজন হয় বলে অনেকেই এক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়েন। তারপরও অনেক উদ্যোক্তা অটোমোবাইলের ব্যবসা করতে উদ্যোগ নিয়ে থাকেন। কারণ এখানে যেমন কাজের চাপ তুলনামূলক কম, তেমনি খুব দ্রুত অধিক আয় করা সম্ভব।

Source : ciaps

তবে আপনি যখন অটোমোবাইল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন, তখন পুরো বিষয়টি গোড়া থেকে শুরু করতে হবে। একাউন্টিং, মার্কেটিং, বিজ্ঞাপন প্রচারণা, আইনত কার্যকলাপসহ ব্যবসার স্ট্রাটেজি এবং উৎপাদন খরচের বিষয়গুলো নিয়ে গভীরভাবে গবেষণা করতে হবে। তবে এসব সমস্যা এড়িয়ে যেতে চাইলে আপনি পুরনো কোনো প্রতিষ্ঠান কিনে নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। আর এক্ষেত্রেও অতিরিক্ত সর্তকতা অবলম্বন করাটা জরুরি।

তবে আপনি যখন উদ্যোক্তা হিসেবে সিদ্ধান্তে অটল, তখন বড়সড় ভুল হওয়াই স্বাভাবিক। তাই ভুলগুলো এড়াতে নিজেকে কিছু বিষয়ে প্রশ্ন করুন। কারণ এসব সিদ্ধান্তের উপর আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নির্ভর করবে।

১. কেন আপনি অটোমোবাইলের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করতে ইচ্ছুক ?

Source: OCLC

অন্যকিছু ভাবার পূর্বে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে, কেন এই উদ্যোগ আপনি গ্রহণ করছেন। এই প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করে  নিজের জীবন বদলাতে চাইছেন নাকি  প্রচুর অর্থ আয় করতে চাইছেন ? আপাতদৃষ্টিতে প্রশ্নটিকে তেমন জটিল না মনে হলেও আপনার ভবিষ্যৎ কর্মধারা এবং স্ট্রাটেজি অনেকাংশে এই সিদ্ধান্তের উপর নির্ভর করবে। তাই জেনে নিন, প্যাশন নাকি অর্থ আয়, কোনটি আপনার মূল লক্ষ্য, সে বিষয়ে নিশ্চিত হোন।

২. জটিল ব্যবসায়িক পরিকল্পনা নিয়ে আপনি কি প্রস্তুত ?

Source: Inside Lane

অটোমোবাইল ব্যবসার প্রতিটি কাজ সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করার জন্য ছোটখাটো বিষয়গুলোর ব্যাপারেও পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা নেয়া দরকার। তবে শুরুতে প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক বিষয়, মার্কেটিং আর কর্মীদের নিয়ে যতই ভালো পরিকল্পনা করুন, এরপরও অসংখ্য সমস্যা রয়ে যাবে। তবে আশাহত হওয়ার কিছু নেই। কারণ এই ভুলগুলো শুধরে নিয়ে আপনি ভবিষ্যতে আরো ভালো ব্যবসায়ী হতে পারবেন।

৩. আপনি কী পরিমাণ সম্পদ বিনিয়োগ করছেন ?

 সেটা আর্থিক অথবা অবকাঠামোগত ব্যবসায়িক পরিকল্পনা গ্রহণের পরপরই আপনাকে হিসেব করতে হবে, কী পরিমাণ অর্থ আপনার এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে প্রয়োজন হবে।  আপনার বর্তমান আর্থিক অবস্থা বিবেচনা করার পাশাপাশি ব্যাংক ঋণের বিষয়টি নিয়েও ভেবে দেখতে হবে। এছাড়া ঋণ নেয়ার পর সেই অর্থ কীভাবে  পরিশোধ করবেন, সে বিষয়েও পূর্ণাঙ্গ পরিকল্পনা থাকতে হবে।

Source: besthqwallpapers

৪. তহবিল কীভাবে সংগ্রহ করবেন ?

বিনিয়োগের পরিমাণ ঠিক করার পরপরই তহবিল সংগ্রহ করার কাজ শুরু করতে হবে। এখন কথা হচ্ছে, আপনি এই অর্থ কীভাবে সংগ্রহ করবেন? এক্ষেত্রে আপনার জমানো অর্থ এখানে বিনিয়োগ করতে পারেন। কিন্তু বেশিরভাগ সময়েই দেখা যাবে, আপনার একার অর্থ এই পরিকল্পনা শুরু করার জন্য যথেষ্ট নয়। সেক্ষেত্রে আপনাকে ঋণ নিতে হবে। কিন্তু  এই ঋণ আপনি কীভাবে সংগ্রহ করবেন ?

Source: OCLC

 আপনি যদি ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে আগ্রহী হন, সেক্ষেত্রে ব্যাংকের সুদের পরিমাণ হিসেব করে প্রয়োজনীয় কাজগুলো সম্পর্কে গবেষণা করতে হবে। অন্যদিকে যদি পরিবার আর বন্ধুবান্ধবের কাছ থেকে ঋণ নিতে পারেন, সেক্ষেত্রে আপনার সুদের টাকা বেঁচে যাবে আর ঝামেলাও অনেক কম হবে।

৫. কীভাবে প্রতিষ্ঠান চালাবেন এবং সে বিষয়ে আপনি কতটা দক্ষ ?

শুধু পরিকল্পনা করলেই হবেনা, সেগুলো সফলভাবে বাস্তবায়ন করাও গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যখন যে কোনো প্রতিষ্ঠান খুলতে যাবেন, তখন উদ্যোক্তা হিসেবে সেই কাজ সম্পর্কে অত্যন্ত গভীরভাবে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। কীভাবে  সঠিকভাবে রিসোর্স ব্যবহার করা যায়, আপনার অধীনস্থদের কীভাবে নির্দেশনা দেয়া যায়, কীভাবে নিজের নেয়া সিদ্ধান্ত ব্যবসায় প্রয়োগ করতে হয়, সেসব বিষয়ে ভালোভাবে জানতে হবে।

 যদি মনে হয় আপনার যথেষ্ট দক্ষতা নেই, সেক্ষেত্রে আগে নিজের দক্ষতা বাড়ান। এরপর আপনি যেসব বিষয়ে দুর্বল, সেসব ক্ষেত্রে দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার জন্য বিকল্প পথ খুঁজে বের করুন।

৬. কোন ধরনের অটোমোবাইল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আপনি গড়ে তুলতে চান?

অটোমোবাইল সেক্টরটি বেশ বড়সড় বলা চলে। যার ফলে ক্রেতাদের চাহিদার উপর ভিত্তি করে অসংখ্য ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। আপনার প্রতিষ্ঠান কী ধরনের হবে, সেটা নির্ধারণ করার পূর্বে অনেকগুলো বিষয় বিবেচনা করতে হবে। যেমন, যে প্রতিষ্ঠানটি খুলবেন সে বিষয়ে আপনার অভিজ্ঞতা, জ্ঞান অথবা প্যাশন কতটুকু?  যখন আপনার জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার সাথে আপনার প্রতিষ্ঠানের কাজের মিল থাকবে, তখনই আপনি সফল হতে পারবেন।

Source : wikihow

 কোন ধরনের অটোমোবাইল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে চান, সে বিষয়ে যদি এখনো কোনো সিদ্ধান্তে না আসতে পারেন, তাহলে নিম্নোক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর কথা বিবেচনা করতে পারেন।

  • অটো গ্লাস
  • অটো পেইন্টিং
  • অটোমোটিভ রিপেয়ার
  • গাড়ি ভাড়া দানকারী প্রতিষ্ঠান
  • গাড়ি ক্লিনিং প্রতিষ্ঠান
  • তেল পরিবর্তনকারী প্রতিষ্ঠান
  • যাত্রীবাহী প্রতিষ্ঠান
  • গাড়ি সাজানোর সামগ্রীর প্রতিষ্ঠান

৭. ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের ভৌগলিক অবস্থান

আপনার প্রতিষ্ঠান কোথায় অবস্থিত, তার ওপরও আপনার সফলতা অনেকাংশে নির্ভর করে। ধরুন, আপনি এমন স্থানে গাড়ি বিক্রির প্রতিষ্ঠান খুলে বসলেন, যেখানে চলাচলের মাধ্যম হচ্ছে নৌপথ। তাহলে আপনার ব্যবসা কখনোই সফলতা মুখ দেখবে না। তাই স্থান নির্বাচনের পূর্বে ভেবে দেখুন, আপনার ব্যবসার সেবার ধরনের সাথে সেখানকার ভৌগলিক পরিস্থিতি কতটা সম্পর্কিত।

Source: adsolutions.yp.com

এসব বিষয়ে স্পষ্টভাবে সিদ্ধান্ত নেয়া ছাড়াও আইনগত কাগজপত্রের বিষয়ে সঠিকভাবে জেনে নিন। এবং আইনি জটিলতামুক্ত একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলুন। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানের ইনস্যুরেন্সও করে রাখবেন। কারণ যেকোনো সময়েই কোনো দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। সবদিক দিয়ে নিজেকে এভাবে প্রস্তুত করে তুলতে পারলেই আপনি অটোমোবাইল ব্যবসায় সফল হতে পারবেন।

ফিচারড ইমেজঃ Being Mad 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *